ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ !

ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ

ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে যানা গেছে। ইরানের জনগনের কাছে টেলিগ্রাম খুব জনপ্রিয় একটি অ্যাপ্লিকেশন ছিলো। টেলিগ্রাম এর তথ্য মতে ইরানের প্রায় ৪ কোটি লোক ব্যবহার করতো টেলিগ্রাম অ্যাপটি, কারন ইরানে আগে থেকে ফেসবুক, টুইটার ও ইউটিউব বন্ধ ছিলো। চলুন তাহলে জেনে নেই কেনো বন্ধ হলো টেলিগ্রাম!

ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ !

ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ
ইরানে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ

ইরানের বিচার বিভাগ জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি হবার কারন দেখিয়ে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ করেছেন। এর পরে ইরানের যে সব মানুষ টেলিগ্রাম ব্যবহার করতেন তারা বিপাকে পরেছেন।

তবে জরুশ নামে ইরানি একটা অ্যাপ ব্যবহার করার জন্য ইরানের মানুষদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। কিন্তু অনেকে দাবি যে ইরানের মানুষে জরুশ নামক অ্যাপের প্রতি ভরসা নেই।

টেলিগ্রাম তাদের গ্রাহকদের তথ্য গোপন রাখার সুযোগ দেয় আর তাই ইরানের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কখনোই টেলিগ্রাম ব্যবহারকারীদের উপর নজর রাখতে পারে না। আর সেই জন্যই নাকি টেলিগ্রামকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

টেলিগ্রাম শুধু মাত্র একটি বার্তা পাঠানোর অ্যাপ ছিলো না, ইরানি প্রেসিডেন্ট সহ ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি নিজে ও গণযোগাযোগের জন্য ব্যবহার করতেন এই অ্যাপ টি।

এছাড়া বার্তা, ছবি ও ভিডিও আদান প্রদান করার এই অ্যাপটির উপরে নির্ভর ছিলো অনেকে আয় রোজগার। অনেকে আগে থেকেই বুঝতে পেরেছিলেন যে টেলিগ্রামের উপর নিষেদ্ধাজ্ঞা আসতে পারে তাই অনেকই ক্ষুব্ধ ছিলেন এই সিদ্ধান্তের ব্যাপারে।

গত জানুয়ারিতে ইরানের প্রায় ৮০ টি শহরে যখন বিক্ষোভ চলছিলো তখন ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এই অ্যাপটির ব্যবহার ছিলো চোখে পরার মতো।

তবে ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব, আর এখন টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ হলেও ইরানের মানুষ বিভিন্ন প্রক্সি ওয়েবসাইট আর সফটওয়্যার ব্যবহার করে নিষিদ্ধ এই অ্যাপস গুলো চালাচ্ছে।

তাই প্রযুক্তিবিদের মতে, যদি ইরানে এই সব অ্যাপস ব্যবহার একেবারে বন্ধ করতে হয় তাহলে ইরানে ইন্টারনেটই বন্ধ করে দিতে হবে যেটা কোনো ভাবেই সম্ভব নয়।

কারন যারা প্রযুক্তির ব্যাপারে খুব বেশি কিছু জানেন না তারাও প্রক্সি ওয়েবসাইট আর সফটওয়্যার ব্যবহার করে চালাচ্ছে সব নিষিদ্ধ অ্যাপস ও ওয়েবসাইট। যার জন্য কোনো অ্যাপ বা ওয়েবসাইট নিষিদ্ধ হলে ও সেগুলো চালাতে পারছেন সবাই।

টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ করার পরে এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি, তবে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তিনি এখনো কোনো জোরালো পদক্ষেপ নেন নি।

আমাদের Bangla News Paper ওয়েবসাইটে প্রতিদিন জিভিট করলে আপনি অজানা অনেক খবর জানতে পারবেন সবার আগে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *