বাঘের খাঁচায় মিম !

বাঘের খাঁচায় মিম

বাঘের খাঁচায় মিম কে দেখা যাচ্ছে! এটা কি সত্যি নাকি ফটোশপের কাজ! আসলে এটা কোনো ফটোশপ না আর মিমের সাথে যেই বাঘটা দেখা যাচ্ছে সেটা ও সত্যিকারের জীবন্ত একটা বাঘ! চলুন তাহলে বিস্তারিত যেনে নেই বাঘের সাথে মিমের কাটানো ১০ মিনিট নিয়ে।

বাঘের খাঁচায় মিম !

বাঘের খাঁচায় মিম
বাঘের খাঁচায় মিম

এবার ঈদের ছুটি কাটাতে বাবা মা কে সাথে নিয়ে ব্যাংককে বেড়াত যান অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম। সেখানে নামুয়াং সাফারি পার্কে গিয়ে ঢুকে পরেন বাঘের খাঁচায়!

বাঘের খাচার ভেতরে প্রায় ১০ মিনিটের মতো সময় কাটিয়েছেন মিম। ছবিতে মিমের মুখে যেই হাসিটা দেখতে পাচ্ছে সেটা আসলে মনের হাসি না। কারন মনে মনে অনেক ভয় পাচ্ছিলেন মিম।

অবশ্য ভয় পওয়াটাই স্বাভাবিক। জীবন্ত একটা বাঘের সামনে গেলে যে কোনো সাধারণ মানুষ ভয় পাবে।

ছবিটি দেখে অনেকে হয়তো মনে হয়েছিলো এটি কোনো ছবির শুটিং এর সময়ের দৃশ্য। কারন এছাড়া কেনই বা মিম জীবন্ত বাঘের সামনে যাবে।

সাফারি পার্ক গুলোতে শিকারি অনেক প্রানী থাকে যে প্রানীগুলো হিংস্র হলেও শিকারি হবার কারনে মানুষকে আক্রমন করে না। আর সামনেই সাফারি পার্কার কর্মীরা থাকে যেনো বাঘ কোনো কারনে হিংস্র রুপ ধারণ করলে সেটা অবস্থাকে স্বাভাবিক করা যায়।

চাইলে আপনি ও বাঘের সাথে ছবি তুলতে পারবেন যে সব দেশে এই রকমের সাফারি পার্ক আছে। তবে মাঝে মাঝে এই ধরনের কাজগুলো অনেক খারাপ রুপ নেয়। কারন এরা হিংস্র প্রানী।

মিম নিজে ও বলেছেন যে তিনি মৃত্যুর ভয়ে এতোটুকু হয়েছিলেন। তবে ছবি তোলার জন্য তাকে হাসতে হয়েছে। যদি ও বলছেন ভয় পেয়েছেন তিনি, তবে অনেক সাহস লাগে এই রকম বাঘের সামনে গিয়ে ছবি তুলতে। সেই সাহস টা দেখিয়েছে মিম।

ছবিতে যতোটুকু বোঝা যাচ্ছে, মিমি লেডিস জেঞ্জির মতো কিছু একটা পড়ে আছেন আর মিমের জামায় হয়তো BOSS নামে কিছু একটা লেখা আছে। আসলেই BOSS এর মতো একটা ছবি।

আর ছবিতে যেই বাঘটিকে দেখা যাচ্ছে যেই বাঘটি বেশ বড়। বাঘের সামনে মিমকে একেবারেই ছোট মনে হচ্ছে। অভিনেত্রী মিম বাঘের পিঠে হাত দিয়ে হাসি মুখে ছবি তুলেছেন।

বিনোদন জগতের তারকাদের খবর সবার আগে পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট Bangla News Paper এ প্রতিদিন ভিজিট করুন। আমাদের এই খবরের ওয়েবসাইটে আপনি খবর ছাড়াও আরো অনেক কিছু পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *